২১ এপ্রিল ২০১৭, শুক্রবার

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে শারীরিক মিলন সম্পর্কে ইসলাম কি বলে?

 প্রথমবার্তা ডেস্ক, রিপোর্টঃ              ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলামে সকল বিষয়ের উপরেই রয়েছে সঠিক দিক নির্দেশনা। তাই পুরুষের খায়েশাত মেটানোর জন্য আল্লাহর তরফ থেকে নেয়ামত হিসেবে বান্দাদের জন্য সৃষ্টি করেছেন নারীদের। আর এই নেয়ামত (নারী) পেতে হলে ইসলামি মতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করতে হবে। তাহলেই নারীদের সাথে সহবাস করা যায়েজ।

 

 

 

 

 

কিন্তু আমাদের সমাজে কিছু পুরুষ আছে যারা সর্ব অবস্থাই স্ত্রীর সাথে শারীরিক মিলন করতে চায়। কিন্তু ইসলামি মতে সব সময়ই স্ত্রীর সাথে শারীরিক মিলন যায়েজ নয়। নিম্নে দেখে নিন কোন কোন সময় স্ত্রীর সাথে শারীরিক মিলন করা যাবে না।

 

 

 

 

১) হায়েজ অবস্থায়। অর্থাৎ মহিলাদের যখন পিরিয়ড/মাসিক চলাকালিন অবস্থায়। মাসিক সময়কাল সর্বনিম্ন ৩ দিন এবং সর্বোচ্চ ১০ দিন হতে হবে। যদি মাসিক সময় ১০ দিনের ঊর্ধে হয় তাহলে তখন শারীরিক মিলন করা যাবে।

 

 

 

 

২) নেফাজ অবস্থায়। অর্থাৎ বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর থেকে ৪০ দিন পর্যন্ত স্ত্রীর সাথে সহবাস করা যাবে না।

 

 

 

 

৩) ডাক্তারদের মতে বাচ্চা পেটে থাকা অবস্থায় যদি স্ত্রীর শারীরিক কোন সমস্যা অথবা বাচ্চার কোন ক্ষতি আশঙ্কা করা যায় তাহলে স্ত্রীর সাথে মেলামেশা করতে গেলে খুব সাবধান অবস্থায় করতে হবে। এটা ইসলামি মতে যায়েজ।

 

 

 

 

৪) স্ত্রীর সাথে সহবাস কালিন অবস্থায় উত্তেজনা বশত স্ত্রীর স্তনে চুম্বন করার পর যদি স্ত্রীর স্তন থেকে দুধ বের হয় তাহলে ঐ দুধ স্বামীর জন্য পান করা হারাম। বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হওয়ার পূর্বে অথবা পরে যে কোন অবস্থায়েই হারাম।

You must be logged in to post a comment Login



মতামত

প্রতিদিনের সর্বশেষ সংবাদ পেতে

আপনার ই-মেইল দিন

Delivered by FeedBurner