ঢাকা, সোমবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

তুমি ছাড়া বাংলাদেশ টিম প্রান হারা বাঘ!

    মাইকেল জ্যাকসন যখন স্টেজে পারফর্ম করতেন হাজার হাজার জনতা আবেগে কেঁদে দিত। তার মৃত্যুতে পুরো পৃথিবী কেঁদে ছিল। বক্সার মোহাম্মদ আলীর শেষকৃত অনুষ্ঠানে লক্ষাধিক মানুষ একোত্রিত হয়েছিল। ঝরিয়েছিল চোখের নোনা জল। প্রিন্সেস ডায়না রোড এক্সিডেন্ট করে মারা গিয়েছিলেন। তার মৃত্যুতে ইংল্যান্ডে তিন দিনের শোক দিবস পালন করা হয়।

 

 

 

 

পুরো ইংল্যান্ড জুড়ে কান্নার সাগর বয়ে গিয়েছিলো। এই গুলো সবই ভালোবাসার প্রকাশ । তাদের প্রিয় ব্যক্তিত্ব কে হয়তো তারা কেউ কোনদিন চোখে দেখেনি কিন্তু মনের ভেতর এক আবেগীয় ভালোবাসা পঞ্জিভূত ছিল। আমাদের মাশরাফি বিন মর্তুজা বর্তমান তিনি এখনো জীবিত ।

 

 

 

 

মাত্র T20 ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছেন আর তাতেই আমি অনেকের চোখেই ভালোবাসার পানি দেখেছি । যেদিন তার পেজে সে ঘোষণা দিলেন T20 থেকে সে অবসর নিচ্ছেন। সেদিন তার ভক্তদের আবেগ ছড়ানো কমেন্ট গুলো দেখে আমার নিজের চোখেই পানি এসেছিল।

 

 

 

 

একজন লিখেছেন, আর কোনদিন খেলা দেখব না ভাই। আপনি না থাকলে আর দেখব না খেলা। কী হবে খেলা দেখে? যেখানে বাংলাদেশের জার্সি গায়ে বাংলাদেশ দলে আপনি নাই।

 

 

 

 

আরেকজন লিখছেন, অবসরে সবাইকে যেতে হয়, এটা ঠিক কিন্তু ম্যাশ তুমি অবসরে যাচ্ছ শুনে চোখ ভিজে যাচ্ছে। মানতে পারছিনা। তুমি ছাড়া বাংলাদেশ টিম প্রান হারা বাঘ। এই রকম হাজার হাজার কমেন্ট হৃদয় কে অশ্রু সিক্ত করে এছাড়া প্রতিটি টাইম লাইনে আজ একটা করে দীর্ঘশ্বাস দেখতে পাচ্ছি।

 

 

 

 

অনেক ক্রিকেটার আসবে, হয়তো মাশরাফির পারফর্ম কে ছাড়িয়ে যাবে কিন্তু মাশরাফির প্রতি যে মানুষের ভালোবাসা সেটাকে কখনোই অতিক্রম করতে পারবে না কেউ। কিছু কিছু মানুষের অবদান কে অস্বীকার করা যায় না। মাশরাফির অবদান বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য অনস্বীকার্য।

 

 

 

 

তার পায়ের কথা বাদই দিলাম, যখন বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম ঝড়ে পতিত নাবিক হীন নৌকার মতো তখন এই মাশরাফি শক্ত হাতে দলের হাল ধরেছিলেন। তার নিজ দক্ষতায় দলকে নিয়ে গেছেন সাফল্যের উচ্চ শিখরে।

 

 

 

 

যখন মাহমুদুল্লাহ্ কিংবা তামিম ইকবাল খারাপ ফর্মে থাকার দরুন তাদের নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হচ্ছিল। তাদের দল থেকে বাদ দেওয়া নিশ্চিত প্রায় তখন এই মাশরাফি ক্রিকেট বোর্ড কে সাফ জানিয়ে দিয়েছিল ওরা দলে না থাকলে আমি নিজেই দলে থাকবো না।

কারণ তিনি জানতের প্রতিটি প্লেয়ারের খারাপ সময় আসে। আর তাইতো মাশরাফির অবদানের মূল্য তারা দিয়েছিল ব্যাটের মাধ্যমে এবং আজও দিয়ে যাচ্ছেন।

 

 

 

 

এই মহা নায়ক বিদায় নিচ্ছে বা তাকে বাধ্য করা হয়েছে বিদায় নিতে কিন্তু ক্রিকেট বোর্ড কি জানে মাশরাফি একমাত্র ব্যক্তি যে কিনা বাংলাদেশের ষোলো কোটি মানুষের হৃদয় থেকে বিদায় নিবে না কখনোই।

যেমন আজও মানুষের হৃদয় থেকে বিদায় নেয়নি মাইকেল জ্যাকসনের , মোহাম্মদ আলী কিংবা প্রিন্সেস ডায়না। ম্যাশ তুমি মনে কষ্ট নিও না ষোলো কোটি মানুষের ভালোবাসা তোমার সহ সঙ্গী।

Translate »