১৩ জানুয়ারি ২০১৭, শুক্রবার

১২ বছর বয়সী বালিকার আত্মহত্যার লাইভ ভিডিও ইন্টারনেটে ভাইরাল

 প্রথমবার্তা ডেস্ক, রিপোর্টঃ             মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক ১২ বছর বয়সী বালিকার আত্মহত্যার ঘটনার ভিডিও ইন্টারনেটে সরাসরি সম্প্রচারিত হওয়ার পর তা বিশ্বজুড়ে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে। কিন্তু স্থানীয় পুলিশ বলছে তারা এ ব্যাপারে কিছু করতে সক্ষম নন।

 

 

 

 
উত্তর জর্জিয়ার সেডারটাউনের কেইটলিন নিকোল ডেভিস গত ৩০ ডিসেম্বর ৪০ মিনিটের ওই ভিডিও অনলাইনে পোস্ট করেন। এতে দেখা যায় তিনি একটি গাছের ডালে দড়ি বেঁধে আত্মহত্যা করছেন এবং তার পরিবার ও বন্ধুদেরকে বিদায় জানাচ্ছেন।

 

 

 

 
কেইটলিন অশ্রুভেজা চোখে বলেন, “আমি দুঃখিত যে আমি বেঁচে থাকার জন্য যথেষ্ট নই। আমি সবকিছুর জন্য দুঃখিত। আমি সত্যি সত্যিই খুব দুঃখিত। কিন্তু আমি এটা করতে পারি না। ” এসময় তার পরনে একটি সাদা ব্লাউজ ও জিন্স ছিল।
এরপর দেখা যায় তিনি, গলায় রশি বেঁধে নিজেকে ঝুলিয়ে দিচ্ছেন।

Loading...

 

 

 

 
এর কয়েকদিন আগে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে ডেভিস বলেছেন, তার পরিবারেরই এক সদস্যের হাতে তিনি যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। স্থানীয় রোম নিউজ-ট্রিবিউন পত্রিকার এক প্রতিবেদনে একথা বলা হয়।

 

 

 

 
যদিও ডেভিসের পরিবার ফেসবুক থেকে ওই ভিডিওটি সরিয়ে নেয় তথাপি সেটি ইউটিউব সহ অন্যান্য সাইটে শেয়ারের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। ইউটিউবও অবশ্য ভিডিওটি সরিয়ে নেয়।

 

 

 

 
পোক কাউন্টি পুলিশ প্রধান কেনি ডড স্থানীয় ফক্স ফাইভ টেলিভিশন স্টেশনকে বলেন, পুলিশ ভিডিওটির ছড়িয়ে পড়া থামাতে অক্ষম। যদিও পুরো বিশ্ব থেকে এটিকে থামানোর জন্য অসংখ্য বার্তা আসছে।

 

 

 

 
বুধবার ডড বলেন, পরিবারটি সদস্যদের মতো আমরাও ভিডিওটি সরিয়ে নিতে চাই। আমরা সাইটগুলোর বেশ কয়েকটির সঙ্গেও যোগাযোগ করেছি। তার বলেছে, ভিডিওটি অপসারনে যদি তাদের ওপর আইনী বাধ্যবাধ্যকতা আরোপ করনা হয় তাহলে তারা তা করবেন না।

 

 

 

 

Loading...

কিন্তু সাধারণ সৌজন্যতার খাতিরে তারা কাজটি করবেন। ”
বার্তা সংস্থা এএফপি পোক কাউন্টির পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলতে অস্বীকৃতি জানায়।
সূত্র: এনডিটিভি

Loading...

মতামত

প্রতিদিনের সর্বশেষ সংবাদ পেতে

আপনার ই-মেইল দিন

Delivered by FeedBurner

[X]